জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে সাবজেক্ট নিয়ে ভ্রান্ত ধারণা।

বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মানুষেমানুষের ভুল ধারনা আছে,যেমন উদ্ভিদবিজ্ঞান নিয়ে অনার্স পড়া মানুষগুলোকে অনেক প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়। যেমন,, এই বিষয়ে পড়ে কি হবে?? কোন চাকরিবাকরি আছে নাকি??
????উদ্ভিদবিজ্ঞান নিয়ে কিছু তথ্যঃ
⬛BOTANY/উদ্ভিদবিজ্ঞান
◼️বিষয়বস্তুঃ
উদ্ভিদবিজ্ঞান বা উদ্ভিদ-জীববিদ্যা হচ্ছে জীববিজ্ঞানের একটি শাখা যা জীবন্ত উদ্ভিদের বিষয়ে বৈজ্ঞানিক নিরীক্ষণ সংক্রান্ত কাজ করে থাকে। ঐতিহ্যগতভাবে, উদ্ভিদবিজ্ঞান ছত্রাক ,
শৈবাল এবং ভাইরাস নিয়েও কাজ করে । বৈজ্ঞানিক পরিমন্ডলের দিক থেকে বিচার করলে, উদ্ভিদবিজ্ঞান অনেকগুলো পরিমন্ডলে বিস্তৃত; যেমন- গঠন, বৃদ্ধি, প্রজনন, বিপাক, ক্রমোন্নয়ন, রোগ, রাসায়নিক বৈশিষ্ট্য এবং বিবর্তনগত সম্পর্ক।শ্রেণীকরণের ভিত্তিতে প্রাপ্ত গুচ্ছগুলোর প্রেক্ষিতে এই বিষয়গুলো আলোচিত হয়। বিজ্ঞানের প্রাচীন শাখাগুলোর একটি হল উদ্ভিদবিজ্ঞান। মানুষ যখন প্রাথমিক পর্যায়ে খাওয়ার উপযোগী, ঔষধগুণ সম্পন্ন এবং বিষাক্ত উদ্ভিদ চিহ্নিত করতে শুরু করে, তখন থেকেই উদ্ভিদবিজ্ঞানের সূচনা। বর্তমান সময়ে উদ্ভিদবিজ্ঞানীরা ৫৫০,০০০ এরও বেশি প্রজাতির জীবন্ত প্রাণ নিয়ে গবেষণা করে চলেছেন।
◼️চাহিদা ও ভবিষ্যতঃ
জীনমলিকুলার বায়োলজি, জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং, টিসু কালচার, জীন ক্লোনিং পরিবেশ সংক্রান্ত ব্যবস্থাপনা, ঔষধ উৎপাদন, শস্য উৎপাদন ইত্যাদি ক্ষেত্রে উদ্ভিদ বিজ্ঞানীর সম্ভাবনা প্রবল। এছাড়াও এখানে রয়েছে বেশ বিছু মাইক্রোবায়োলজিক্যাল বিষয়সহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে এমফিল ও পিএইচডি করার সুযোগ।
◼️যা পড়ানো হয়ঃ
উদ্ভিদবিজ্ঞান-বিষয়টির নাম শুনলেই মনে হয় যে শুধুমাত্র গাছপালা নিয়ে যে পড়াশুনার মাঝেই বিষয়টি সীমাবদ্ধ। কিন্তু, আসলে ধারণাটি সম্পূর্ণ সঠিক নয়। শুধুমাত্র গাছপালা নিয়েই পড়াশুনার মাঝে এই বিষয়টি সীমাবদ্ধ নয়। এই বিষয়টির অধীনে রয়েছে বিশাল এক ক্ষেত্র। এক নজরে দেখে নেয়া যাক বাংলাদেশে সম্মান তথা, অনার্স কোর্সটিতে আসলে কোন কোন দিক নিয়ে পড়াশুনা করানো হয়-
1. Microbiology
2. Mycology
3. Phycology
4. Higher Cryptogams
5. Angiosperms Taxonomy
6. Biodiversity
7. Basic Biochemistry
8. Gymnosperms
9. Economic Botany
10. Paleobotany
11. Plant Anatomy
12. Plant Ecology
13. Cytology
14. Plant Physiology
15. Classical Genetics
16. Plant Breeding
17. Biostatistics
18. Soil Chemistry and Soil Fertility
19. Plant Pathology
20. Plant Biochemistry
21. Molecular Genetics
22. Limnology
23. Cytogenetics
24. Embryology of Angiosperms
25. Plant Nutrition
26. Ethnobotany
27. Horticulture
28. Plant Biotechnology
29. Bioinformatics
তবে বিশ্বের অন্যান্য দেশে ইউনিভার্সিটি ভেদে কিছু কিছু সাবজেক্ট পরিবর্তন হয়ে থাকে।
⚫বাংলাদেশে কোথায় পড়ানো হয়ঃ
ঢাকা, জাহাঙ্গীরনগর, রাজশাহী ও চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভূক্ত অনেক কলেজে এই সাবজেক্ট পড়ানো হয়।তবে বেশিরভাগ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত বাংলাদেশের সরকারী কলেজগুলোতে এই সাবজেক্ট বেশি পড়ানো হয়।
⚫বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষাঃ
ক) দেশে: ঢাকা, জগন্নাথ, জাহাঙ্গীরনগর, রাজশাহী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে উদ্ভিদবিদ্যা বিষয়ের উপর M.S, M.Sc এবং Ph.D করা যায়।
⚫চাকুরির ক্ষেত্রসমূহঃ
বোটানির জব মুলত গবেষনামুলক কাজ।
১. মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক, স্নাতক ও স্নাতকোত্তর এর সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতাসহ বিসিএস ক্যাডার সার্ভিসে যোগদানের সুযোগ।
২. Medical Representative হিসাবে বিভিন্ন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানীতে যোগদানের সুযোগ।
৩. ফরেস্ট অফিসার হিসেবে যোগদানের সুযোগ।
৪. Agronomy সংশ্লিষ্ট কর্মকান্ডে যোগদানের সুযোগ।
৫. কৃষি সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোতে নিয়োজিত হওয়ার সুযোগ।
৬. BCSIR, NIPSOM, IEDCR, AIPH, ICDDR,BIRDEM ও অন্যান্য দেশী বিদেশী গবেষণা প্রতিষ্ঠানে বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা হিসাবে যোগদানের সুযোগ।
৭. শিক্ষালয় জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে ব্যক্তিগত উদ্যেগ Harticulture, নার্সারি স্থাপন, বনায়ন এ্যাকুয়াকালচার উন্নতমানের ফসল উৎপাদন করার সুযোগ।
৮. বিভিন্ন বায়োটেকনোলজি ল্যাবে এর অনেক চাহিদা আছে।
৯. তাছাড়া সরকারি ও বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠােন, সকল মন্ত্রনালয়ে, বোটানিক্যাল গার্ডেনে চাকুরীর সুযোগ রয়েছে।
১০. বিভিন্ন ঔষধ ফ্যাক্টরিতে এ বিভিগের ছাত্রছাত্রীদের যোগদানের সুযোগ রয়েছে।
১১. উদ্ভিদবিদ, ব্যাংক, এনজিও, আর্মি, পুলিশ, প্রশাসনিক সহ অনেক চাকুরীর সুযোগ আছে।
১২. এছাড়াও চা-বাগান, রাবার বাগান, বন ও পরিবেশ বিভাগ, মাশরুম উৎপাদন কেন্দ্র, বীজ উৎপাদন কেন্দ্রে চাকুরীর সুযোগ আছে।
◾বিদেশে চাকরির সুযোগ:
????শিক্ষকতা: এই বিভাগের শিক্ষার্থীরা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ইউনিভার্সিটিতে বর্তমানে শিক্ষকতা করছে। আপনি চাইলেও বিশ্বের নামকরা যে কোন দেশে, যেকোনো ইউনিভার্সিটি’তে আপনার কোয়ালিফিকেশন অনুযায়ী শিক্ষকতা করতে পারবেন ।এইসব ইউনিভারসিটিতে আপনি শিক্ষকতার পাশাপাশি গবেষণার কাজ খুব ভালোভাবে করতে পারবেন।
????রিসার্চ সেন্টার: চীন জাপান কোরিয়া ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন রিসার্চ সেন্টারে আপনি রিসার্চ অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে কাজ করতে পারবেন। তাছাড়া বিভিন্ন রিসার্চ সেন্টারে ট্রেইনার হিসেবেও আপনি কাজ করতে পারবেন।
????এগ্রিকালচার ফার্ম: বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন এগ্রিকালচার ফার্মের আপনি খুব ভালো পোস্টে চাকরি করতে পারবেন ।এগ্রিকালচার ফার্মের পরিচালনা থেকে শুরু করে প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে ও এই বিভাগের শিক্ষার্থীরা বর্তমানে কাজ করছে।
????ঔষধ কোম্পানি: বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন ঔষধ কোম্পানিতে এই বিভাগের শিক্ষার্থীরা অনায়াসে কাজ করতে পারে ওষুধ কোম্পানির প্লান্ট মেডিসিন ডিপার্টমেন্টে এই বিভাগের শিক্ষার্থীরা বিশেষভাবে প্রাধান্য পেয়ে থাকে।

????নোট: যারা মনে করেন উদ্ভিদবিজ্ঞান বিষয়টি নিয়ে পড়াশোনা করে কোন চাকরি পাওয়া যায় না তাদের এই ভ্রান্ত ধারণাটি মন থেকে মুছে ফেলুন।

Similar Posts