বিসিএস বাংলা সাহিত্যের জন্য প্রস্তুতি কীভাবে নিবেন?

বিসিএস বাংলা সাহিত্যের জন্য প্রস্তুতি কীভাবে নিবেন?

#বাংলা সাহিত্য (২০ নম্বর)ঃ প্রাচীন ও মধ্যযুগ (৫)ঃবাংলা সাহিত্যে প্রাচীন যুগে আছে শুধুমাত্র চর্যাপদ। এখান থেকে প্রশ্ন আসবেই। এছাড়াও মধ্যযুগে টপিক সংখ্যাও সীমিত। সব মিলিয়ে আপনি টেন মিনিট স্কুল কিংবা বাজারে প্রচলিত যেকোন বইয়ের প্রাচীন ও মধ্যযুগ যদি খুব ভালোমত পড়েন, সেখান থেকে ৫ নম্বর খুব সহজেই পেয়ে যেতে পারেন তবে সব সময় নাও পাওয়া যেতে পারে।

আধুনিক যুগ (১৫)ঃ বাংলা আধুনিক যুগের কলেবর বৃহৎ। বেশিরভাগ শিক্ষার্থী বাংলা সাহিত্যের এই ভাগে বেশ ভোগান্তিতে পড়ে। আপনি বাংলা সাহিত্যের শিক্ষার্থী না হলে এখানে ৮৩% এর অধিক নম্বর পাওয়ার চিন্তা না করাই ভালো (৮৩% নম্বর পাওয়ার দরকারও নাই আসলে)। আপনারা নিম্নলিখিত সাহিত্যিকগণের সকল সাহিত্যকর্ম যদি ভালোভাবে পড়ে যান তাহলে এখান থেকে ৭/৮ নম্বর কমন পেতে পারেন।

১। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর ২। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ৩। কাজী নজরুল ইসলাম ৪। জসীম উদদীন ৫। মাইকেল মধুসূদন দত্ত ৬। বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় ৭। মীর মশাররফ হোসেন ৮। দীনবন্ধু মিত্র ৯। বেগম রোকেয়া সাখাওয়াৎ হোসেন ১০। কায়কোবাদ ১১। ফররুখ আহমদ

এছাড়াও বাংলা সাহিত্যে পঞ্চপাণ্ডব নামে খ্যাত নিম্নলিখিত সাহিত্যিকগণ সম্বন্ধেও আপনাকে পড়তে হবে যে গুলো।

১।জীবনানন্দ দাশ ২।বিষ্ণু দে ৩।অমিয় চক্রবর্তী ৪।সুধীন্দ্রনাথ দত্ত ৫।বুদ্ধদেব বসু বাংলা সাহিত্যে বিভিন্ন পত্রিকা বাংলা সাহিত্যের বিকাশে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছে। এজন্যে প্রতিবছর বাংলা পত্রিকা ও তাদের সম্পাদক রিলেটেড ১/২টি প্রশ্ন এসে থাকে প্রায় । এছাড়াও মুক্তিযুদ্ধ ও ভাষা আন্দোলনভিত্তিক বিভিন্ন সাহিত্যকর্ম থেকেও প্রশ্ন নিয়মিতই আসে। তাই আধুনিক যুগের প্রিপারেশন নেয়ার ক্ষেত্রে সবার আগে এই বিষয়গুলোতে ফোকাস করে আপনি যদি অন্যান্য ক্ষেত্রে আপনার প্রিপারেশন বিস্তৃত করতে পারেন তাহলে একটি স্মার্ট প্রিপারেশন আপনি খুব সহজেই নিয়ে নিতে পারবেন।

 

Similar Posts