ব্যাংকিং এ ডিজিটালাইজেশন: আমরা কি সম্পূর্ণ নিরাপদ?

ব্যাংকিং খাত অর্থনীতির প্রাণকেন্দ্র, অন্যদিকে তথ্য ও প্রযুক্তি ব্যাংকিং খাতের প্রাণকেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। গত কয়েক বছরে, ব্যাংকিং খাত একটি দুর্দান্ত রূপান্তর দেখেছে। ব্যাংকিং খাতের ব্যবসায়িক কার্যক্রম সম্পূর্ণরূপে কম্পিউটারাইজড পদ্ধতির উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে।

“ডিজিটালাইজেশন” ধারণাটি একটি বৈশ্বিক স্লোগানে পরিণত হয়েছে। ব্যাংকিং খাতে “ডিজিটালাইজেশন” মানে শুধু কাগজবিহীন ব্যাংকিং নয়; বরং এটি নতুন প্রযুক্তির প্রয়োগ যা বিদ্যমান ব্যবসায়িক মডেলকে একটি নতুন ব্যবসায়িক মডেলে রূপান্তরিত করে।

গত এক দশক ধরে তথ্য ও প্রযুক্তি ব্যাংকিং খাতের প্রবৃদ্ধিতে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছে। এই সময়ের মধ্যে গ্রাহকদের স্বাদ এবং চাহিদা ব্যাপকভাবে পরিবর্তিত হয়েছে। তারা প্রচলিত ব্যাংকিং ব্যবস্থার প্রতি উদাসীনতা দেখিয়েছে। গ্রাহকদের রুচির কথা বিবেচনা করে ব্যাংকগুলি এখন এটিএম, মোবাইল ব্যাংকিং, অনলাইন ব্যাংকিং, ইন্টারনেট ব্যাংকিং, টেলি-ব্যাংকিং, “যে কোন সময়” এবং “যে কোন জায়গায়” ইত্যাদি নতুন পণ্য আনার উপর জোর দিচ্ছে।

ব্যাংক প্রযুক্তিভিত্তিক অবকাঠামো প্রতিষ্ঠায় বিনিয়োগ করছে। কিছু ব্যাংক ইতিমধ্যে তাদের বাড়িতে আইটি সিস্টেম তৈরি করেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের মতে, বর্তমানে ব্যাংকের 87 শতাংশ শাখা অনলাইন এবং percent শতাংশ আংশিকভাবে অনলাইনে রয়েছে। মাত্র ৫ শতাংশ শাখা অফলাইন ব্যাংকিং করে। এটি উল্লেখযোগ্য যে, বাংলাদেশের গ্রামীণ শাখার percent শতাংশ এখন অনলাইন।

পূর্বে ব্যাংকগুলি শাখা সম্প্রসারণের দিকে মনোনিবেশ করবে। কিন্তু একটি নতুন শাখা স্থাপন একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া। এই ক্ষেত্রে, ব্যাংকগুলি এখন গ্রাহকদের দোরগোড়ায় ব্যাংকিং পরিষেবা পৌঁছে দিতে এটিএম বুথগুলিতে মনোনিবেশ করছে। তাছাড়া, এটিএম দিন দিন গ্রাহকদের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। মানুষ তাদের সাথে অর্থ বহন করতে অনিচ্ছুক হয়ে উঠছে। বরং তারা যেকোন লেনদেনের জন্য একটি কার্ড ব্যবহার করতে পছন্দ করে। এজন্য ব্যাংকগুলি সারা দেশে এটিএম বুথ স্থাপনের দিকে বেশি মনোযোগ দিচ্ছে।

আগে এটিএম বুথ শুধুমাত্র শহরাঞ্চলে দেখা যেত, কিন্তু এখন ব্যাংকগুলি গ্রামাঞ্চলেও এটিএম বুথ স্থাপন করতে শুরু করেছে। এছাড়াও, এটিএম সম্প্রসারণ, ব্যাঙ্কগুলি পিওএস (পয়েন্ট অফ সেল) টার্মিনালেও খুব জোর দিচ্ছে।

Read more:  এমন ৯ টি অনলাইন কাজ যা আপনি বাড়িতে বসেই করতে পারেন | 9 Great Work-From-Home Jobs

অনেক ব্যাংক অনেক দোকান, হোটেল ইত্যাদিতে পিওএস টার্মিনাল স্থাপন করেছে যদিও এটিএমের সংখ্যা বাড়ছে, এটিএম ইনস্টলেশন বেশ ব্যয়বহুল। এটিএম এর বিকল্প হিসাবে, ব্যাংকগুলি ক্যাশ ডিপোজিট মেশিন (সিডিএম) এবং ক্যাশ রিসাইক্লিং মেশিনের (সিআরএম) দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। সিডিএম অনেকটা এটিএমের অনুরূপ যা একজনকে কার্ড ব্যবহার করে সরাসরি তার অ্যাকাউন্টে নগদ জমা দিতে দেয়। আমাদের দেশে, প্রায় 1,403 সিডিএম মেশিন ইনস্টল করা হয়েছে।

আরো পড়ুনঃ- 

যদিও, সিআরএম একটি দ্বৈত ফাংশন মেশিন যা একটি আমানত নিতে পারে, নোটগুলি প্রক্রিয়া করতে পারে এবং তারপর এটি উত্তোলনের জন্য ব্যবহার করতে পারে। বাংলাদেশ ব্যাংকের মতে, সারা দেশে 237 সিআরএম মেশিন রয়েছে।

মোবাইল ব্যাংকিং আর্থিক সেবার সর্বশেষ সংযোজনগুলির মধ্যে একটি। আগে, মোবাইল ফোন শুধুমাত্র কথা বলার জন্য ব্যবহৃত হত। কিন্তু এখন এটি ব্যাঙ্কিং কাজে ব্যবহৃত হয়, যেখানে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ব্যাংকিং সেবা প্রদান করা যায়। টেলি-ব্যাংকিং হল আধুনিক ব্যাংকিংয়ের আরেকটি নতুন আবিষ্কার যা গ্রাহকদের টেলিফোনে বিভিন্ন ধরনের আর্থিক লেনদেন করতে সক্ষম করে।

সময়সূচী ব্যাংকের পাশাপাশি, বাংলাদেশ ব্যাংক সম্প্রতি তাদের কর্মকাণ্ডে কিছু সংস্কার এনেছে। এই সংস্কারের অংশ হিসেবে রিপোর্টিং সিস্টেমে ব্যাপক পরিবর্তন আনা হয়েছে। নিয়মিত কার্যক্রমের অংশ হিসেবে সকল ব্যাংককে কিছু রিপোর্ট বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা দিতে হবে।

এই রিপোর্টের মধ্যে কিছু কাগজ ভিত্তিক এবং কিছু কাগজবিহীন। ইন্টিগ্রেটেড সুপারভাইজরি সিস্টেম (আইএসএস) একটি কম্পিউটার-ভিত্তিক সিস্টেম যার দ্বারা বাংলাদেশ ব্যাংক শুধু ব্যাংকগুলোর কার্যক্রম তদারকি ও পর্যবেক্ষণ করে না বরং সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলিও শাখার কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করতে পারে।

বাংলাদেশ ব্যাংক স্বয়ংক্রিয় CIB চালু করেছে, যা বৈদ্যুতিকভাবে ক্রেডিট তথ্য প্রদান করে। BACH (বাংলাদেশ স্বয়ংক্রিয় ক্লিয়ারিং হাউস) 2010 সালে চালু করা হয়েছিল এবং প্রাচীন ক্লিয়ারিং সিস্টেমকে প্রতিস্থাপিত করেছিল যা তাত্ক্ষণিকভাবে আন্তbব্যাঙ্কের চেক লেনদেনের অনুমতি দেয়।

Read more:  ই-সিম বাংলাদেশে কবে আসছে বিস্তারিত!

BEFTN (বাংলাদেশ ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফার নেটওয়ার্ক) হল ব্যাংকিং ব্যবস্থার আরেকটি মাইলফলক যার মাধ্যমে একটি অ্যাকাউন্ট থেকে অন্য অ্যাকাউন্টে তহবিল স্থানান্তর করা যায় একটি নির্দিষ্ট ব্যাংকের মধ্যে বা একাধিক প্রতিষ্ঠানে। আরটিজিএস (রিয়েল টাইম গ্রস সেটেলমেন্ট) শুরু দেশের ব্যাংকিং ব্যবস্থায় একটি বিপ্লব এনেছে যার মাধ্যমে চূড়ান্ত নিষ্পত্তি তাত্ক্ষণিকভাবে করা যেতে পারে।

কিন্তু, এখন মূল প্রশ্ন হল – আমাদের প্রযুক্তিগত অবকাঠামো সম্পূর্ণ সুরক্ষিত কিনা? উত্তরটি বেশ উদ্বেগজনক কারণ আমরা এখনও কোন শক্তিশালী প্রযুক্তিগত অবকাঠামো গড়ে তুলিনি। আইটি জালিয়াতির বিষয়ে কোন নির্দিষ্ট নির্দেশিকা নেই। বরং, আমাদের দুর্বল আইটি অবকাঠামোতে প্রচুর ফাঁক রয়েছে। আইটি নিরীক্ষা এখানে বাধ্যতামূলকভাবে পরিচালিত হয় না। এমনকি দক্ষ আইটি নিরীক্ষকের সংখ্যাও এখানে খুবই কম।

চলমান লকডাউনের সময় এটি আরও প্রাসঙ্গিক হয়ে ওঠে যখন আরও বেশি সংখ্যক মানুষকে ডিজিটাল ব্যাংকিংয়ের উপর নির্ভর করতে বাধ্য করা হচ্ছে।

আমাদের ব্যাংকের গ্রাহকরা আইটি ঝুঁকি সম্পর্কে মোটেই দক্ষ এবং যথেষ্ট সচেতন নন। ডিজিটাল পণ্য ব্যবহারে গ্রাহকদের অজ্ঞতা সাম্প্রতিক অনলাইন প্রতারণার জন্যও দায়ী। উদাহরণস্বরূপ, আমরা গ্রাহকদের একটি সাধারণ প্রবণতা হোটেল বয় বা দোকানদারের কাছে অর্থ প্রদানের জন্য হস্তান্তর করি। কিন্তু আমাদের অধিকাংশেরই ধারণা নেই যে শুধু কার্ড নম্বর, মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ এবং সিভিভি নম্বরই প্রতারণার লেনদেনের জন্য যথেষ্ট। সুতরাং, এই সুবিধাগুলি গ্রহণ করে, দুর্বৃত্তরা ঘন ঘন অনলাইন জালিয়াতি পরিচালনা করছে।

উল্লেখ্য, কয়েক বছর আগে দক্ষিণ কোরিয়ায় ব্যাংকিং খাত হ্যাকারদের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছিল। ফলস্বরূপ, অনেক ব্যাংক পরিষেবা থেকে চলে গেছে। এমনকি এটিএমগুলি ঘন্টার জন্য পরিষেবা বন্ধ ছিল। এখন প্রশ্ন হল বিশ্বের সবচেয়ে প্রযুক্তিগতভাবে অত্যাধুনিক দেশের ব্যাংকিং সেক্টর যদি হ্যাকারদের দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে, তাহলে আমাদের দেশে এ ধরনের ব্যাপক হামলা হলে কী হবে?

কোন ব্যাংকই তাদের গ্রাহকদের নিরাপত্তা সঠিকভাবে নিশ্চিত করতে পারে না। এটিএম জালিয়াতি রক্ষার জন্য, সমস্ত এটিএম একটি ভিডিও ক্যামেরা দিয়ে সজ্জিত হতে হবে। যদিও, প্রায় সব ব্যাংকই দাবি করে যে তাদের কার্ডগুলি ইএমভি এবং চিপ-ভিত্তিক, বাংলাদেশের বেশিরভাগ এটিএমই চিপ পড়তে পারে না। সুতরাং, এটিএম EMV অনুবর্তী হওয়া উচিত। সকল ব্যাংকের উচিত তাদের গ্রাহকদের নিরাপদ ব্যবহার এবং ইলেকট্রনিক ব্যাংকিং এর জন্য শিক্ষিত করার জন্য একটি প্রচারণা চালানো। ব্যাঙ্কগুলিকে ই-কেওয়াইসি (ইলেকট্রনিক-নন ইওর কাস্টমার) ফর্ম চালু করতে হবে যা কোন জালিয়াতির সম্ভাবনা কমিয়ে দেবে।

Read more:  বাংলাদেশের সেরা কয়েকটি অনলাইন বইয়ের দোকান।

পরিশেষে, আমানতকারীর আমানত ব্যাংকারদের পাশাপাশি ব্যাংকের কাছে একটি “আমানত”। ডিজিটাল রূপান্তর শুধুমাত্র গ্রাহকদের উন্নতির জন্য করা হয়েছে। এর প্রধান লক্ষ্য, দৃষ্টি এবং উদ্দেশ্য গ্রাহকদের জীবনকে সহজ এবং আরামদায়ক করে তোলা। যদি ব্যাংকগুলি তার গ্রাহকের আমানতের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়, তাহলে গ্রাহকদের টাকা হারানোর আর্তনাদ কখনও থামবে না। ধীরে ধীরে, গ্রাহকরা ডিজিটাল ব্যাংকিং সরঞ্জামগুলির উপর তাদের আস্থা হারাবেন।

আমাদের আরো একটি ওয়েবসাইট লেখা পড়ার কথা এখানে লেখাপড়া, বিজনেস, টেকনোলজি এবং স্বাস্থ্য বিষয়ক অনেক কিছু লিখা লিখি করা হয়! অব্যশই একটু ঘুরে আসবেন!

ধন্যবাদ😇

About shakib

Hello! I’m Shakib. Known as Mainul Hasen Shakib on social media. I always try to do something new using my acquired experience.

View all posts by shakib →

3 Comments on “ব্যাংকিং এ ডিজিটালাইজেশন: আমরা কি সম্পূর্ণ নিরাপদ?”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *